• রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:০৮ সকাল

হাঁটু পানি পেরিয়ে বিদ্যালয়ে যায় তারা

  • প্রকাশিত ০৫:৩২ ভোর সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২১
বরিশাল-বিদ্যালয়
হাটু পানি পেড়িয়ে যেতে হয় বিদ্যালয়ে সংগৃহীত

এমনকি স্কুলটির বাচ্চাদের অনেক সময় কোমর সমান পানির ভেতর দিয়েও শ্রেণিকক্ষে যেতে হয়, আবার শ্রেণিকক্ষ উঁচু হওয়ায় সেখানে প্রায়ই সাপেরও দেখা মেলে 

বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম কেউটিয়া গ্রামের আবুল হোসেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গন বর্ষার পানিতে প্লাবিত হয়েছে। তাই হাঁটু সমান পানির ওপর দিয়ে শ্রেণিকক্ষে যেতে হয় শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের। পাশাপাশি একটু বৃষ্টিতে পানি ঢুকে পড়ে শ্রেণিকক্ষেও।  এই অবস্থাতেই চলছে বিদ্যালয়টির পাঠদান কার্যক্রম।

স্থানীয়রা জানান, পশ্চিম কেউটিয়া গ্রামটি মূলত নদী তীরবর্তী চরাঞ্চল। নদী ও খাল বেস্টিত হওয়ায় এখানকার বেশিরভাগ এলাকা বন্যা-জলোচ্ছ্বাসের সময় পানিতে প্লাবিত থাকে। সেইসঙ্গে ঘূর্ণিঝড়সহ প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় নিরাপদ আশ্রয়ের কোনো ব্যবস্থাও নেই এ গ্রামে। তাই আবুল হোসেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য সাইক্লোন সেন্টার ও স্কুলভবন বরাদ্দের দাবি জানিয়েছেন তারা।

স্থানীয় বাসিন্দা সুমন হাওলাদার জানান, পানিতে ডুবে কিংবা সাপের কামড়ে যে কোনো সময় ঘটতে পারে দুর্ঘটনা। তাই সন্তানদের স্কুলে পাঠিয়েও দুশ্চিন্তায় থাকতে হয়, কারণ অল্প জোয়ারেই টিনশেড জরাজীর্ণ ভবনটির চারপাশ পানিতে তলিয়ে থাকে। বাচ্চাদের অনেক সময় কোমর সমান পানি পাড় হয়ে শ্রেণিকক্ষে যেতে হয়। আবার শ্রেণিকক্ষ উঁচু হওয়ায় সেখানে সাপসহ অন্যান্য সরীসৃপ জাতীয় প্রাণীরা আশ্রয় নেয়। 

বিদ্যালয়ের শিক্ষক ইমরান মাহাবুব বলেন, “পানিতে বিদ্যালয় প্রাঙ্গন তলিয়ে থাকলে ছোট ছোট বাচ্চা ও শিক্ষক সবাইকে ক্লাশরুমে আসতে হয় পানি মাড়িয়ে। হয়তো শিক্ষকরা হাঁটুজল পার হয়ে আসেন কিন্তু শিক্ষার্থীদের কোমড় পর্যন্ত পানি থাকে মাঠটিতে। ছোট ছোট বাচ্চাদের বিদ্যালয়ে আসা ও যাওয়া পর্যন্ত পাঠদানের থেকে বেশি উৎকন্ঠায় থাকতে হয় তারা যেন অসতর্কতামূলক পানিতে ডুবে না যায়।”

তিনি আরও বলেন, “এছাড়া ক্লাশরুম থেকে বিচ্ছিন্ন শৌচাগারেও পানি মাড়িয়ে যেতে হয়। আর শৌচাগার পানিতে তলিয়ে থাকলে তো সবথেকে বেশি ভোগান্তিতে পরতে হয় ছাত্রীসহ নারী-শিক্ষকদের। এক কথায় পানির কারণে শৌচাগার ব্যবহার বন্ধই থাকে।”

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক একে এম হাফিজুর রহমান বলেন, “আবুল হোসেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আশপাশের এলাকায় জেলেসহ খেটে খাওয়া মানুষের সংখ্যাই বেশি। তাদের সন্তানরাই এ বিদ্যালয়ে নিয়মিত পাঠগ্রহণ করেন।  ২০১৩ সালে সরকারি হওয়া এ বিদ্যালয়ে বর্তমানে প্রায় ২শ’ শিক্ষার্থী রয়েছে। ৫ জন শিক্ষক মিলে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন।”

প্রধান শিক্ষক আরও বলেন, “বিদ্যালয়ের মাঠ উচুকরণসহ ভবনের প্রয়োজনীয়তার বিষয়টি কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হয়েছে। তবে স্থানীয়রা দাবি করেছেন ভবনটি যাতে সাইক্লোন সেন্টার ও স্কুলভবন হয়। কারণ এই চরের আশপাশে বেশ কয়েকটি নদী ও খাল রয়েছে, যেগুলো বৈরী আবহাওয়ার সময় ভয়ঙ্কর রুপ ধারণ করে।”

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শাহাদাৎ হোসেন বলেছেন, “মাঠটি ভরাট করার চেষ্টা করছি। স্কুলের প্রধান শিক্ষক ড্রেজিং করে বালু দিয়ে মাঠ ভরাট করার জন্য একটি আবেদন পাঠিয়েছেন। আমরা সেটি পেয়েছি এবং দ্রুত সেটি অনুমোদনের ব্যবস্থা করছি। মাঠটি উঁচু করলে এ সমস্যা আর থাকবে না।”

50
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail