• রবিবার, ফেব্রুয়ারি ০৫, ২০২৩
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:০৮ সকাল

মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থান, সু চি আটক

  • প্রকাশিত ০৪:২৫ ভোর ফেব্রুয়ারি ১, ২০২১
অং সান সুচি
অং সান সুচি। রয়টার্স

দেশজুড়ে জারি করা হয়েছে জরুরি অবস্থা

মিয়ানমার সামরিক বাহিনী রাষ্ট্রীয় উপদেষ্টা অং সান সু চিসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতাদের আটক করে দেশটির নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে। দেশজুড়ে জারি করা হয়েছে জরুরি অবস্থা। 

সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানায়, সোমবার (১ ফেব্রুয়ারি) ভোরে সু চিসহ অন্য নেতাদের আটক করে সেনাবাহিনীর সদস্যরা।  রাজধানী নেপিডো ও প্রধান শহর ইয়াঙ্গুনের রাস্তায় সামরিক বাহিনীর সদস্যদের টহল দিতে দেখা গেছে। 

সশস্ত্র বাহিনীর কমান্ডার-ইন-চিফ সিনিয়র জেনারেল মিং অং হ্লাং-এর কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করা হয়েছে বলে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর মালিকানাধীন টেলিভিশনে এক ঘোষণায় বলা হয়েছে। 

২০১১ সালে গণতান্ত্রিক সংস্কার শুরু হওয়া অবধি সামরিক বাহিনীর দ্বারা শাসিত ছিল মিয়ানমার। ২০২০ সালের নভেম্বরের নির্বাচনে, সু চি'র জাতীয় লীগ ফর ডেমোক্রেসি (এনএলডি) সরকার গঠনের জন্য পর্যাপ্ত আসন জিতেছিল। যদিও সেনাবাহিনী বলেছিল, ভোট জালিয়াতি করা হয়েছে। 

এদিকে মিয়ানমারের বড় বড় শহরগুলিতে মোবাইল ও ইন্টারনেট সংযোগ এবং কিছু ফোন পরিসেবা বন্ধ করা হয়েছে রয়েছে। অন্যদিকে দেশটির সম্প্রচার মাধ্যম এমআরটিভি প্রযুক্তিগত সমস্যা হয়েছে জানিয়ে সম্প্রচার বন্ধ রেখেছে। 

এর আগে এনএলডি-র মুখপাত্র মায়ো নিন্ট জানিয়েছেন, "সু চি, রাষ্ট্রপতি উইন মিন্ট এবং অন্যান্য নেতাদের ভোরের প্রথম দিকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়।" 

তিনি আরও বলেন, "আমি আমাদের জনগণকে বলতে চাই যে তাড়াহুড়া করে কোনো প্রতিক্রিয়া না দেখিয়ে আইন অনুযায়ী কাজ করতে।" 

আটক নেতাদের পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন, সৈন্যরা বেশ কয়েকটি অঞ্চলের মুখ্যমন্ত্রীর বাড়িও গিয়েছিল এবং তাদের সঙ্গে নিয়ে গেছে। 

সোমবার প্রথমবারের মতো নবনির্বাচিত সংসদ সদস্যদের প্রথম বৈঠক হওয়ার কথা থাকলেও সেনাবাহিনী তা স্থগিতের আহ্বান জানিয়েছিল।

বিবিসির দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সংবাদদাতা জোনাথন হেড বলেন, "অভ্যুত্থানটি এক দশকেরও বেশি সময় আগে সেনা কর্তৃক প্রণীত সংবিধানের স্পষ্ট লঙ্ঘন। সু চির মতো রাজনৈতিক নেতাদের আটকে রাখা একটি উস্কানিমূলক এবং অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ পদক্ষেপ। এর ফলে তীব্র বিরোধিতাও হতে পারে।"

কী হয়েছিল নির্বাচনে?

 এনএলডি ৮ ই নভেম্বর নির্বাচনে ৮৩% আসন জিতেছিল। যা অনেকেই সু চি-র বেসামরিক সরকারকে দেওয়া গণভোট হিসাবে দেখেছে। ২০১১ সালে সামরিক শাসন অবসানের পর এটি ছিল দ্বিতীয় নির্বাচন। কিন্তু সামরিক বাহিনী নির্বাচনে জালিয়াতির অভিযোগ এনে এর বিরুদ্ধে "ব্যবস্থা নেওয়ার" হুমকি দিলে সামরিক অভ্যুত্থানের আশঙ্কা বাড়ছিল। যদিও নির্বাচন কমিশন এ অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছে। 

 কে এই অং সান সু চি? 

অং সান সু চি মিয়ানমারের স্বাধীনতা নায়ক জেনারেল অং সানের মেয়ে। ১৯৪৮ সালে মিয়ানমার ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসন থেকে স্বাধীনতা লাভের ঠিক আগে অং সানকে হত্যা করা হয়েছিল। সু চি'র তখন মাত্র দুই বছর বয়স। সু চি'কে একসময় মানবাধিকারের আলোকবর্তিকারূপে দেখা হত। এমন একজন নীতিগত কর্মী যিনি কয়েক দশক ধরে মিয়ানমার শাসন করা নির্মম সেনা জেনারেলদের চ্যালেঞ্জ করে নিজের স্বাধীনতা ত্যাগ করেছিলেন। ১৯৯১ সালে গৃহবন্দি অবস্থায় থাকাকালীন তিনি শান্তিতে নোবেল পুরষ্কার পেয়েছিলেন এবং "শক্তিহীনদের শক্তির অসামান্য উদাহরণ" হিসাবে প্রশংসিত হয়েছিলেন। 

 

সু চি ১৯৮৯ থেকে ২০১০ সালের মধ্যে প্রায় ১৫ বছর বন্দিদশায় কাটিয়েছেন। ২০১৫ সালের নভেম্বরে বিগত ২৫ বছরের মধ্যে অনুষ্ঠিত হওয়া প্রথম প্রকাশ্য প্রতিদ্বন্দ্বিতায় সু চির ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি (এনএলডি) একটি দুর্দান্ত বিজয় অর্জন করেছিল। যদিও, মিয়ানমারের সংবিধান বিদেশি নাগরিক সন্তান থাকায় তাকে রাষ্ট্রপতি হতে নিষেধ করে। তাই ৭৫ বছর বয়সী, সু চি'কে ডি ফ্যাক্টো লিডার হিসাবেই দেখা যেত। 

 

তবে মিয়ানমারের রাষ্ট্রীয় পরামর্শদাতা হওয়ার পর থেকেই তার নেতৃত্বের বিষয়টি দেশের বেশিরভাগ মুসলিম রোহিঙ্গা সংখ্যালঘুদের ওপর করা আচরণের দ্বারা প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে। রাখাইন রাজ্যে সেনা অভিযানের কারণে ২০১৭ সালে কয়েক হাজার রোহিঙ্গা প্রতিবেশী বাংলাদেশে পালিয়ে যায়। সু চি'র প্রাক্তন আন্তর্জাতিক সমর্থকরা তার বিরুদ্ধে, সামরিক বাহিনীর নৃশংসতা, ধর্ষণ, হত্যা ও সম্ভাব্য গণহত্যা বন্ধে কিছু না করার অভিযোগ করেছিলেন। কয়েকজন যুক্তি দিয়েছিল যে তিনি একটি বাস্তববাদী রাজনীতিবিদ ছিলেন, একটি জটিল ইতিহাস নিয়ে বহু-জাতিগত দেশ পরিচালনা করার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু ২০১৪ সালে হেগে আন্তর্জাতিক কোর্ট অব জাস্টিসের শুনানিতে সেনাবাহিনীর পদক্ষেপের প্রতি সু চি'র ব্যক্তিগত প্রতিরক্ষা একটি নতুন মোড় তৈরি করেছিল যা তার আন্তর্জাতিক খ্যাতি কিছুটা কমিয়ে দিয়েছে। তবে নিজ দেশে সু চি এখনও বৌদ্ধ সংখ্যাগরিষ্ঠদের মধ্যে যথেষ্ট জনপ্রিয় যারা রোহিঙ্গাদের প্রতি কিঞ্চিৎ সহানুভূতিই রাখেন।

 

50
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail