• সোমবার, নভেম্বর ২৮, ২০২২
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:০৮ সকাল

নির্মাণ কাজ শেষ না হতেই ভাঙনের কবলে বেড়িবাঁধ

  • প্রকাশিত ০৯:১০ সকাল অক্টোবর ৪, ২০২১
খুলনা-বেড়িবাঁধ
ঢাকা ট্রিবিউন

প্রায় ৩০০ কোটি টাকার এ প্রকল্পের নির্মাণ কাজ শেষ হতে না হতেই একই স্থানে দুবার নদী ভাঙনের কবলে পড়েছে নতুনভাবে নির্মীয়মাণ বেড়িবাঁধটি

বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও জোয়ার ভাটার টানে প্রতিনিয়তই খুলনা অঞ্চলের উপকূলীয় এলাকার এ অঞ্চলের বেড়িবাঁধগুলোর অবস্থা শোচনীয় হওয়ায় জেলা দাকোপ উপজেলার ৩২ ও ৩৩নং পোল্ডারের বেড়িবাঁধ নির্মাণের দায়িত্ব নেয় বিশ্ব ব্যাংক। প্রায় ৩০০ কোটি টাকার এ প্রকল্পের নির্মাণ কাজ শেষ হতে না হতেই একই স্থানে দুবার নদী ভাঙনের কবলে পড়েছে নতুনভাবে নির্মীয়মাণ বেড়িবাঁধ।

জানা যায়, বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে খুলনা ৩২ ও ৩৩ এবং বাগেরহাটের ৩৫/১ ও ৩৫/৩ নম্বর পোল্ডারের বেড়িবাধ পুনর্নির্মাণ চলছে। খুলনার এই দুটি পোল্ডার এলাকার বেড়িবাঁধ নির্মাণের জন্য বরাদ্দ হয় প্রায় ৩০০ কোটি টাকা। দাকোপের ২টি পোল্ডার এলাকার বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। কিন্তু হস্তান্তর করার আগেই বাধে ভাঙ্গন দেখা যায়। এর ফলে এ কাজের মান নিয়ে সাধারণ মানুষের ভেতর ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

পানি উন্নয়ন বোর্ড খুলনার নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আশরাফুল আলম বলেন, "দাকোপের ২টি পোল্ডারের কাজ সম্পন্ন হওয়ার পর কালাবগি এলাকায় একই স্থানে পাশাপাশি জায়গায় দুবার ভেঙ্গেছে। এ অবস্থায় নদী ভাঙন প্রবণ ৬টি স্থান নিহ্নিত করা হয়েছে। এই ৬টি স্থানের ৪ কিলোমিটার এলাকা নতুনভাবে নদী শাসনের আওতায় নিয়েছে বিশ্ব ব্যাংক। তারা এ জন্য নতুন করে বরাদ্দ দিয়ে চলমান প্রকল্পের আওতায়ই নদী শাসনের কাজ সম্পন্ন করবে।"

তিনি জানান, ২৪ সেপ্টেম্বর নদী ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধের পেছন দিয়ে ২৫ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা নাগাদ বিকল্প বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু হয়। সেখানে জিও ব্যাগ ও ডাম্পিং করে ভাঙন প্রতিরোধের উদ্যোগ নেওয়ার পাশাপাশি ২০০ মিটার টেকসই বাঁধ নির্মাণের প্রক্রিয়া চূড়ান্ত করা হয়েছে, যা দ্রুতই শুরু করা হবে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড খুলনা সূত্রে জানা যায়, ২০১৬ সালে খুলনা ও বাগেরহাটের ৪টি পোল্ডার এলাকার বেড়িবাঁধ পুনর্নির্মাণ কাজ শুরু হয়। বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে এ কাজটি শুরু হয়। আর পানি উন্নয়ন বোর্ড এ কাজ তদারকি করছে। কাজটি বাস্তবায়ন করছে চীনা প্রতিষ্ঠান “দ্যা ফাস্ট ইঞ্জিনিয়ারিং অফ হেনান কনজারভেশন”।

দাকোপের নিবাসী মোস্তফা খান জানান, ৩২ ও ৩৩ নম্বর পোল্ডার এলাকার বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজসহ অন্যান্য কাজে ব্যাপক গড়মিল লক্ষ্য করা যাচ্ছে। বাঁধ নির্মাণের কাজ শুরুতে একরকম ছিল। কিন্তু ধীরে ধীরে বাঁধের উচ্চতা ও প্রশস্ত ঠিক রাখা হচ্ছে না। স্থানীয় লোকজন বাঁধ সম্পর্কে তথ্য জানতে স্থানীয়ভাবে কাউকে পাচ্ছে না। পানি উন্নয়ন বোর্ডে এ বিষয়ে অভিযোগও দেয়া হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকেও অবহিত করা হয়।

তিনি আরও জানান, এলাকাবাসী আগেই ভাঙন প্রতিরোধের দাবি জানালেও সেটি আমলে না নেওয়ায় এখন নির্মাণের পরও নদী ভাঙনের কবলে থাকায় এ বাঁধ কোনো কাজে আসছে না। তারা যেকোনো মূল্যে টেকসই বাঁধ নির্মাণ প্রকল্পে ভাঙন প্রতিরোধ ব্যবস্থা যুক্ত করার দাবি জানিয়েছেন।

পানি উন্নয়ন বোর্ড জানায়, প্রস্তাবিত ২০০ মিটার টেকসই বাঁধের কাজ দ্রুত শুরু করা হবে। নবনির্মিত এ বাঁধ এখনও পানি উন্নয়ন বোর্ডের কাছে হস্তান্তর করা হয়নি। কিন্তু তার আগেই বাঁধের বিভিন্ন অংশে ভয়াবহ ভাঙন দেখা দেয়। একই স্থানে আগেও ভেঙ্গেছে। ২৪ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় ৩২নং পোল্ডারের আওতায় কালাবগী বৃহস্পতিবাজার এলাকায় ১০০ মিটার বেড়ীবাঁধ মুহর্তের মধ্যে ভেঙে নদী গর্ভে চলে যায়। ফলে রোপনকৃত আমন ফসল বাঁচাতে ইউনিয়নবাসীর মাঝে উদ্বেগ উৎকন্ঠা ছড়িয়ে পড়ে। ওই রাতেই স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে মাইকিং করে প্রায় ৩০০-৪০০ শ্রমিক কাজ করে তাৎক্ষণিকভাবে পানি আটকাতে সক্ষম হয়।

ভাঙনের খবর পেয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আশরাফুল আলম, খুলনা জেলা পরিষদ সদস্য কবির হোসেন, ইউপি চেয়ারম্যান মাসুম আলী ফকির, চায়না ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা, ইউপি সদস্য নিমাই মন্ডল, মহসিন শেখ, মোন্তাজ সানা, আইয়ুব ঢালী, বেবী নাজনিন, খোকন ঢালী, জাহিদ ফকিরসহ অন্যরা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন।

দাকোপ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিন্টু বিশ্বাস জানান, ভাঙনের তথ্য পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে লোকালয়ে পানি প্রবেশ ঠেকাতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে শ্রমিক লাগিয়ে কাজ করা হয়। একইসঙ্গে বিকল্প বাঁধ নির্মাণের প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছে।

ইউপি চেয়ারম্যান মাসুম আলী ফকির জানান, ঝুঁকিপূর্ণ বাঁধের পেছন থেকে সন্ধ্যা নাগাদ বিকল্প বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু হয়। বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে করা বাঁধের সুতারখালী ইউনিয়নের বেশ কিছু অংশ অনুরুপ ঝুঁকির মুখে রয়েছে।

খুলনা জেলা পরিষদ সদস্য কবির হোসেনের দাবি, কালাবগীর আমিনুর সানার বাড়ী, কালাবগী এইট ব্যান্ডের গেট হতে নলিয়ান শাহাবুদ্দিন সানার বাড়ী, সরকার বাড়ী, জালাল গাজীর কল গৈ ও লতিফ সানার কল গৈ এলাকার বেড়িবাঁধও অনুরুপ ঝুঁকির সম্মুখীন। 

50
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail