• সোমবার, নভেম্বর ২৮, ২০২২
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:০৮ সকাল

মামলা লড়তে এসে আদালতের ক্যান্টিনে বাদী-বিবাদীপক্ষের সংঘর্ষ!

  • প্রকাশিত ০৪:২২ ভোর সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২১
পঞ্চগড়-আদালত
পঞ্চগড় চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ফাইল ছবি/সংগৃহীত

এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে একটি মামলা করেছে

একটি মামলার কার্যক্রমে অংশ নিতে পঞ্চগড়ে আদালতে গিয়ে সেখানকার ক্যান্টিনে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন বাদী ও বিবাদীপক্ষের লোকজন। তাৎক্ষণিকভাবে স্থানীয়দের সহযোগিতায় পঞ্চগড় থানার কোর্ট পুলিশ উভয়পক্ষের ছয়জনকে আটক করে কোর্ট হাজতে পাঠায়।

বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) পঞ্চগড় চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের ক্যান্টিনে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় পুলিশের সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) মজিবর রহমান বাদী হয়ে তেঁতুলিয়া উপজেলার বাংলাবান্ধা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান কুদরত-ই খুদা মিলন এবং উপজেলার দেবনগর ইউনিয়নের বালুবাড়ি এলাকার আব্দুল হামিদসহ সাতজনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাতনামা আরও ৪-৫ জনকে আসামি করে পঞ্চগড় সদর থানায় একটি মামলা করেছেন।

মামলায় বেআইনিভাবে আদালতের বারান্দা ও ক্যান্টিনে ঢুকে সংঘর্ষে জড়ানো, সরকারি কাজে বাধা ও সরকারি কর্মচারীকে বল প্রয়োগের হুমকিসহ আদালতের বিচারিক পরিবেশে নষ্ট করে ক্ষমতার দাপট প্রদর্শন করার অভিযোগ আনা হয়েছে।

পরে আটক তেঁতুলিয়া উপজেলার দেবনগর ইউনিয়নের বালুবাড়ি এলাকার আব্দুল হামিদ (৪০), একই উপজেলার বাইনগঞ্জ এলাকার নুর ইসলাম (৩৮), পাগলীডাঙ্গী এলাকার সেলিম রানা (২৫), জায়গীর জোত এলাকার আজিজার রহমান (৪৭), ঝাড়ুয়া পাড়া এলাকার ফারুক হোসেন (২৫) এবং একই এলাকার সাইদুল ইসলামকে (৩৮) মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে জেলহাজতে পাঠানো হয়। 

তবে মামলার মূল আসামি বাংলাবান্ধা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কুদরত-ই খুদা মিলন পলাতক রয়েছেন। 

ইউপি চেয়ারম্যান কুদরত-ই খুদা মিলনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে আদালতে আত্মসমর্পণ করতে গিয়েছিলাম। কিন্তু কোনো মারামারিতে জড়াইনি। ক্যান্টিনে যখন মারামারি হয় তখন আমি আদালত চত্বরে ছিলাম না। আমাকে কেন এই মামলার আসামি করা হয়েছে জানি না। 

এ বিষয়ে পঞ্চগড় সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল লতিফ মিঞা জানান, পঞ্চগড় চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দায়িত্বে থাকা পুলিশের সহকারী উপ-পরিদর্শক মজিবর রহমান বাদী হয়ে সাত জনের নামে ও অজ্ঞাতনামা ৪-৫ জনকে আসামি করে মামলা দিয়েছেন। মামলায় ছয়জন আসামিকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে। অভিযুক্ত ইউপি চেয়ারম্যানকে গ্রেপ্তারে পুলিশ অভিযান চালাবে বলে জানান তিনি।

50
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail