• শনিবার, আগস্ট ১৩, ২০২২
  • সর্বশেষ আপডেট : ০২:০৮ দুপুর

বিদ্যুৎ-জ্বালানি ছাড়াই চলবে কৃষক উদ্ভাবিত সেচযন্ত্র, খরচও লাগবে কম

  • প্রকাশিত ০৮:৫১ রাত সেপ্টেম্বর ৭, ২০২১
ভোলা-সেচযন্ত্র
ভোলার কৃষক অলিউল্যাহ উদ্ভাবিত সেচযন্ত্র ঢাকা ট্রিবিউন

সেচযন্ত্রটি পরিবেশ বান্ধব। এতে ইঞ্জিন বা বৈদ্যুতিক মটরের মতো কোনো শব্দ নেই

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি ছাড়াই চলবে এমন একটি সেচযন্ত্র উদ্ভাবন করেছেন ভোলার লালমোহন উপজেলার এক প্রান্তিক কৃষক। অলিউল্যাহ নামে ওই কৃষকের সেচযন্ত্রটি জোয়ার-ভাটার স্রোতকে কাজে লাগিয়েই জমিতে পানি সরবরাহে সক্ষম।

উপজেলার লালমোহন ইউনিয়নের পেশকার হাওলা গ্রামের ওই কৃষক স্থানীয় একটি খালে সেচযন্ত্রটি বসিয়ে পরীক্ষামূলকভাবে পানি উত্তোলন শুরু করেছেন। ইতোমধ্যে তার এ সেচযন্ত্রটি স্থানীয় কৃষকদের মাঝে সাড়া ফেলেছে। এটি দেখতে প্রতিদিনই ভিড় করছে উৎসুক জনতা।

কৃষক অলিউল্যাহ প্রায় ২০ হাজার টাকা ব্যয়ে লোহার অ্যাঙ্গেল, প্লেনশিট ও প্লাস্টিক পাইপ দিয়ে তৈরি করেছেন এ সেচযন্ত্রটি। আটটি পাখার সাহায্যে  পানির স্রোতে অনবরত ঘোরে যন্ত্রটি। প্রতিটি পাখায় ইপিভিসি “ক্লাস ডি” পাইপ লাগানো হয়েছে। পাইপের ভেতরে আবার কয়েল পাইপ লাগিয়ে তা একটি কন্টেইনারে সন্নিবেশিত করা হয়েছে। এতে জোয়ারের প্রভাবে যখন পাখাগুলো ঘুরতে থাকে, তখন ইপিভিসি ক্লাস ডি পাইপগুলো পানি ভর্তি হয়ে কয়েল পাইপের মাধ্যমে কন্টেইনারে যায়। আর কন্টেইনার থেকে আরেকটি পাইপের সাহায্যে জমিতে অনবরত পানি সরবরাহ হতে থাকে।

অলিউল্যাহ জানান, যন্ত্রটিকে প্রাথমিক পর্যায়ে জোয়ারের স্রোতনির্ভর করে তৈরি করা হয়েছে, তবে এটিকে আরও আধুনিকায়ন করা হলে জোয়ার-ভাটা উভয় সময়েই পানি উত্তোলন করা যাবে।

কৃষকদের সেচকাজে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে সেচযন্ত্রটি, এমনটাই দাবি তার।

স্থানীয় কৃষক হারেছ মিয়া বলেন, বৈদ্যুতিক মোটর বা ইঞ্জিনের সাহায্যে জমিতে সেচ দিতাম। তাতে অনেক খরচ হয়, তবে এটা দেখে মনে হচ্ছে খরচ অনেকটাই কমে যাবে। তার এমন উদ্ভাবন সকল কৃষকদেরকে উদ্বুদ্ধ করবে।

যন্ত্রটির উদ্ভাবক অলিউল্যাহ বলেন, বিদ্যুৎ ও ইঞ্জিনের সাহায্যে সেচ ব্যবহার করে প্রতি ৮ শতক জমি চাষাবাদে কৃষকদেরকে ৬৫০ টাকা খরচ গুনতে হয়। তবে স্রোতের সাহায্যে চলা এ সেচযন্ত্র ব্যবহারে একই পরিমাণ জমিতে খরচ পড়বে সর্বোচ্চ ১০০ টাকা।

তিনি আরও বলেন, এতে বিদ্যুৎ খরচ, তেল-মবিল খরচ, মেকানিক বা পরিচালনার জন্য কোনো লোকের খরচ বহন করা লাগবে না। এ সেচযন্ত্রটি পরিবেশ বান্ধব। এতে ইঞ্জিন বা বৈদ্যুতিক মটরের মত কোনো শব্দ নেই। খালে পানির স্রোত যত বাড়বে, এ সেচযন্ত্রের মাধ্যমে পানিও তত বেশি উত্তোলন হবে। জোয়ার ভাটা দু’সময়েই পানি উত্তোলন করা যাবে এ সেচযন্ত্রটি দিয়ে, সরবরাহ সম্ভব হবে ২৪ ঘণ্টা। তাই এ সেচযন্ত্রটি আরও আধুনিকায়ন করতে সরকারি বেসরকারি অনুদানের দাবি জানিয়েছেন কৃষক অলিউল্যাহ।

এদিকে লালমোহন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এএফএম শাহাবুদ্দিন জানান, কৃষক অলিউল্যাহরসেচযন্ত্রটি সরেজমিনে পরিদর্শন করে এর কার্যকারিতা ও সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য জেলা উপ-পরিচালক ও কৃষি প্রকৌশলীকে অবহিত করা হয়েছে। যাচাইয়ের পরে সেচযন্ত্রটি কার্যকর হলে উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় সেটাকে বাণিজ্যিকভাবে তৈরিতে সহযোগিতা দেওয়ার চেষ্টা করা হবে। 

লালমোহন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন আহমেদ জানান, তিনি খবরটি শুনেছেন। সময় করে সরজমিনে দেখতে যাবেন।

50
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail