• বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ০১, ২০২২
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:০৮ সকাল

ধর্ষণচেষ্টা মামলা তদন্তে ঘুষ নিয়ে এসআই প্রত্যাহার

  • প্রকাশিত ১০:৪৯ সকাল আগস্ট ৩০, ২০২১
কুমিল্লা

ভুক্তভোগী কিশোরীর মায়ের কাছ থেকে ঘুষ দাবি করা একটি ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে

কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলায় কিশোরীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে দায়ের করা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) ওমর ফারুকের বিরুদ্ধে ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ উঠেছে।  

এদিকে, ভুক্তভোগী ওই কিশোরীর মায়ের কাছ থেকে ঘুষ দাবি করা একটি ভিডিও বার্তা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে তাৎক্ষণিকভাবে ওমর ফারুককে স্বাভাবিক বদলি দেখিয়ে প্রত্যাহার করে কুমিল্লা পুলিশ লাইন্সে নেওয়া হয়েছে।

দেবিদ্বার-ব্রাহ্মণপাড়া থানার সার্কেল সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আমির উল্লাহ ও দেবিদ্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আরিফুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

জানা গেছে, ধর্ষণচেষ্টা মামলাটি তুলে না নেওয়ায় অষ্টম শ্রেণিতে পড়ুয়া ওই কিশোরী, ও তার মা-বাবাকে টেনে-হিঁচড়ে ঘর থেকে ধরে এনে সড়কে ফেলে প্রকাশ্যে লাঠিপেটা করে নির্যাতন করে আসামিরা। এ দুইটি ঘটনারই তদন্ত করছিলেন এসআই ওমর ফারুক।

ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া একটি ভিডিও ফুটেজে ভুক্তভোগী কিশোরীর মাকে ওই পুলিশ সদস্যের কাছে অভিযোগ করতে দেখা যায়। সেখানে তিনি ওই পুলিশ সদস্যকে বলেন, “ধর্ষণচেষ্টাকারীরা মামলা তুলে নিতে বারবার মারধর করছে আমাকে। আমার জীবনের নিরাপত্তা নেই। হয় আসামি ধরেন, না হয় মামলাটি রেফার করেন।”

কিন্তু তদন্ত কর্মকর্তা এসআই ওমর ফারুক কোনোটিই করেননি, ভুক্তভোগীর অভিযোগ, তার কাছে গেলেই তদন্ত কর্মকর্তা বলেন, “আমাদের টাকা লাগবে।” তদন্তের কাজে ৩ বার আসলে প্রত্যেকবারই চার, তিন এবং আড়াই হাজার টাকা করে ঘুষ গ্রহণ করে ওই পুলিশ কর্মকর্তা, বলেও জানা গেছে।

এছাড়া, ওই পরিপারের কাছ থেকে আরও ২০ হাজার টাকা দাবি করেন এসআই ওমর ফারুক।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সোমবার (৩০ আগস্ট) দেবিদ্বার-ব্রাহ্মণপাড়া থানার সার্কেল সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আমির উল্লাহ ও দেবিদ্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আরিফুর রহমান বলেন, "কিশোরী ধর্ষণচেষ্টা মামলার তদন্তকারী অফিসার এসআই ওমর ফারুককে স্ট্যান্ড রিলিজ করা হয়নি, এটা স্বাভাবিক বদলি। জেলা পুলিশ সুপারের মৌখিক নির্দেশে তাকে পুলিশ লাইন্সে নেওয়া হয়।"

তবে শনিবার (২৮ আগস্ট) রাতে তাৎক্ষণিক বদলির বিষয়ে একটি চিঠি কুমিল্লা জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয় হতে দেবিদ্বার থানায় আসে বলে জানিয়েছেন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক পুলিশ কর্মকর্তা। প্রত্যাহার হওয়া এসআই ওমর ফারুক নিজেই বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

উল্লেখ্য, গত ২০ আগস্ট শুক্রবার দুপুরে কুমিল্লা দেবিদ্বারের ধর্ষণচেষ্টার মামলা তুলে নিতে অভিযুক্ত হাসান এবং বড় ভাই কাউছার আহম্মেদসহ অন্যান্য আসামিরা ভুক্তভোগী কিশোরী ও তার মা-বাবাকে প্রকাশ্যে লাঠিপেটা করেন। লাঠিপেটা সময় ধারণ করা একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

পরে নির্যাতনের ঘটনায় বৃহস্পতিবার (২৬ আগস্ট) রাতে দেবিদ্বার থানার হাসান, ভাই কাউছার, বাবা নুরুল ইসলাম, মোস্তাফা কামালসহ আটজনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করে কিশোরীর বাবা। গত শুক্রবার জেলার বিভিন্ন জায়গায় র‌্যাব-পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৪ জনকে গ্রেফতার করলেও এ ঘটনার মূল আসামি কাউছার ও হাসানকে এখনও গ্রেফতার করা হয়নি।

50
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail