• রবিবার, আগস্ট ১৪, ২০২২
  • সর্বশেষ আপডেট : ০২:০৮ দুপুর

মা-ছেলেকে অপহরণ করে মুক্তিপণ চাওয়া সিআইডি সদস্যরা জেল হাজতে

  • প্রকাশিত ০৯:৪৯ রাত আগস্ট ২৫, ২০২১
দিনাজপুর-পুলিশ
অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়ে অভিযুক্ত দিনাজপুরের পুলিশ সদস্যদের আদালতে নেওয়া হচ্ছে ঢাকা ট্রিবিউন

এ ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলার বাদী হয়েছেন অপহরণের শিকার জাহাঙ্গীর

দিনাজপুরে মা ও ছেলেকে অপহরণ করে ১৫ লাখ টাকা মুক্তিপণ আদায়ের সময় গ্রেপ্তার সিআইডির এএসপিসহ পাঁচজনকে বুধবার (২৫ আগস্ট) বিকেলে দিনাজপুর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-৪-এ তোলা হয়। এরপর বিচারক শিশির কুমার বসু তাদেরকে জেল হাজতে পাঠানোর আদেশ দেন।

এর আগে সিআইডি পুলিশের রংপুর অফিসের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার সারোয়ার কবীর সোহাগ, এএসআই হাসিনুর রহমান ও পুলিশ কনস্টেবল আহসানুল ফারুখ মিলন, তাদের বহনকারী মাইক্রোবাস চালক এবং দালাল পলাশকে আদালতে হাজির করা হয়। এ ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলার বাদী হয়েছেন অপহরণের শিকার জাহাঙ্গীর।

এর আগে, মা ও ছেলেকে “অপহরণ ও মুক্তিপণ আদায়ের” অভিযোগে অপরাধ ও তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) তিন কর্মকর্তাকে হাতে-নাতে আটক করে পুলিশের কাছে তুলে দেয় স্থানীয় জনগণ।


আরও পড়ুন- 'অপহরণের পর মুক্তিপণ' আদায়ের সময় এএসপিসহ হাতে-নাতে ধরা ৩ সিআইডি সদস্য


স্থানীয় ও পুলিশের ভাষ্য অনুযায়ী, সোমবার চিরিরবন্দর উপজেলার নান্দেরাই গ্রামের লুৎফর রহমানের বাসায় যান সিআইডির ওই তিন কর্মকর্তা। এ সময় কষ্টিপাথর পাচারসহ তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগে লুৎফর রহমানকে গ্রেপ্তার করা হবে বলে জানান তারা। তবে তার বিরুদ্ধে কোনো লিখিত অভিযোগ বা মামলা দেখাতে পারেননি সিআইডির এই তিন সদস্য। 

লুৎফর রহমানকে না পেয়ে তার স্ত্রী জহরা বেগম ও তার ছেলে জাহাঙ্গীর আলমকে আটক করে নিয়ে যান অভিযুক্তরা। পরে মঙ্গলবার সকালে মা-ছেলেকে ছেড়ে দেওয়ার জন্য জাহাঙ্গীরের ফোন থেকে তার পরিবারের সদস্যদের কাছে ৮ লাখ টাকা দাবি করা হয়।

দাবি করা টাকা নিয়ে মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে অপহৃতদের স্বজন মামুন ও আফতাবুর জামান এবং চিরিরবন্দর থানার পুলিশ সদস্য মো. তাজুল ইসলামসহ কয়েকজন ঠিকানা অনুযায়ী হাজী দানেশ বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন বাঁশের হাট এলাকায় যান। স্থানীয় লোকজন তখন সিআইডির সদস্যদের ধরে ফেলেন। পরে তারা চিরিরবন্দর থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে সিআইডির সহকারী পুলিশ সুপার সোহাগসহ তিনজনকে থানায় নিয়ে যায়।

সেখানে তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদের পর মামলা করে আদালতে তোলা হয়।

50
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail