• শনিবার, ডিসেম্বর ০৩, ২০২২
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:০৮ সকাল

রাজবাড়ীতে পাটের বাম্পার ফলন, কৃষকের মুখে হাসি

  • প্রকাশিত ০৭:১৫ সকাল আগস্ট ৬, ২০২১
রাজবাড়ী-পাট
রাজবাড়ীতে এবার পাটের রেকর্ড উৎপাদন হয়েছে ঢাকা ট্রিবিউন

জেলায় এ বছর পাট উৎপাদনে অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে

রাজবাড়ীতে এবার লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১ হাজার ৪৮০ হেক্টর জমিতে বেশি পাটের আবাদ করা হয়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবং আগাম বন্যা না হওয়ায় ফলনও ভালো হয়েছে। আবার পাটের মান ভাল হওয়ায় কৃষকরা দামও পাচ্ছেন ভালো। চলমান বৈশ্বিক মহামারির মাঝে পাটের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি যেন অমূল্য রতন। 

তবে পানির সঙ্কটে কোথাও কোথাও দূর-দূরান্তে নিয়ে পাট জাগ দিতে হচ্ছে কৃষককে।  ফলে পরিবহন খরচ ও শ্রমিক সঙ্কট নিয়ে তারা কিছুটা চিন্তিত।

রাজবাড়ী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, ২০১৯-২০ অর্থবছরে ৪৬ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হয়েছিল। ২০২০-২১ অর্থবছরে তা বেড়ে দাঁড়ায় ৪৭ হাজার ৯৮০ হেক্টরে। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ১০ হাজার ১২০ হেক্টর, পাংশায় ১১ হাজার ৬৮০ হেক্টর, কালুখালীতে ৯ হাজার ৩৫০ হেক্টর, বালিয়াকান্দিতে ১২ হাজার ৫৫০ হেক্টর এবং গোয়ালন্দ উপজেলায় ৪ হাজার ২৮০ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে। উন্নতমানের বীজ, সুষম মাত্রায় সার প্রয়োগ এবং সেচ সুবিধা নিশ্চিত হওয়ায় পাটের বাম্পার ফলন হয়েছে।

গোয়ালন্দ উপজেলার উজানচর ইউনিয়নের মৃধাডাঙ্গা এলাকার কৃষক আজাহার নলিয়া বলেন, “৪ বিঘা জমিতে পাট চাষ করেছি। প্রতি বিঘায় প্রায় ৮ থেকে ১০ মণ পাট উৎপাদন হয়েছে। সার, বীজ, নিড়ানি ও পাট কাটা, জাগ দেওয়ার জন্য কামলা, জাগ দেওয়ার পরিবহন খরচ বাবদ প্রতি বিঘায় ১০ থেকে ১২ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। বাজারে পাট বিক্রি হচ্ছে ২ হাজার ৬০০ থেকে ৩ হাজার টাকার মধ্যে। মৌসুম শেষ পর্যন্ত দাম এভাবে থাকলে কৃষকরা প্রচুর লাভবান হবে এবং পাট চাষে আরও আগ্রহী হয়ে উঠবে।”

ছবি: ঢাকা ট্রিবিউন

উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়নের রোকন মোল্লা পাড়া এলাকার কৃষক রহিম ফকির বলেন, “গত বছর ৫ বিঘা জমিতে পাটের আবাদ করে ভালো দাম পেয়েছিলাম। সেজন্য এবার ১০ বিঘা জমিতে পাটের আবাদ করেছি। ফলন ভালো হয়েছে।”

সদর উপজেলার খানখানাপুর ইউনিয়নের চরধোপাখালী গ্রামের ওয়াজেদ আলী শেখ বলেন, “এবার পাটের ভালো ফলন হয়েছে। কিন্তু এলাকায় পাট জাগ দেওয়ার জন্য পর্যাপ্ত পানি নেই। ফলে দূরে পরিবহন ভাড়া করে নিয়ে পাট জাগ দিতে হচ্ছে। এছাড়া এবার শ্রমিক সঙ্কট রয়েছে। মজুরিও বেশি। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে এবার পাটে আরও বেশি লাভবান হব।”

গোয়ালন্দ বাজারের পাট ব্যবসায়ী মজিবর রহমান মজি বলেন, “এবার এ অঞ্চলে ব্যাপক পাটের আবাদ হয়েছে। গতবারের তুলনায় এবার পাটের মানও ভালো। তবে কিছু কিছু জায়গায় পানির অভাবে ঠিকভাবে প্রক্রিয়াজাত করতে না পারায় মান কমেছে। তা না হলে কৃষকরা পাটের আরও দাম পেত।”

এ প্রসঙ্গে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক এসএম শহীদ নুর আকবর বলেন, “জেলায় এ বছর পাট উৎপাদনে অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে। আমাদের এ বছরের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪৬ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ। অর্জিত হয়েছে ৪৭ হাজার ৯৮০ হেক্টর। এবার পাটের দামও ভালো। পাটের বাম্পার ফলন ও ভালো দাম পাওয়ায় কৃষকরা আগামীতে আরও বেশি পাট চাষে আগ্রহী হয়ে উঠবে।”


50
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail