• সোমবার, অক্টোবর ০৩, ২০২২
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:০৮ সকাল

আদা-রসুনের মূল্য পাইকারিতে সস্তা, খুচরা বাজারে চড়া

  • প্রকাশিত ০৪:১৬ ভোর এপ্রিল ৩০, ২০২০
বাজার
ফাইল ছবি মেহেদী হাসান/ ঢাকা ট্রিবিউন

পাশাপাশি, ডাল ও চিনির মধ্যে ছোলার ডাল ৬০-৭০ থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ৮০-৯০ টাকা, মশুর ডাল ৪০-৪৫ থেকে ৫০-৫৫ টাকা ও চিনি ৬৫-৭০ টাকা থেকে ৭০-৭৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে

করোনাভাইরাস পরিস্থিতি ও খারাপ আবহাওয়ার কারণে ক্রেতাদের উপস্থিতি হ্রাসের ফলে পাইকারি বাজারে আদা-রসুনসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম কমলেও খুচরা বাজারগুলোতে তা চড়া রয়েছে।

পাইকারি বিক্রেতারা বলছেন, গত দু’দিনের তুলনায় মঙ্গলবার (২৮ এপ্রিল) আদার দাম কেজিতে ১০০ টাকা এবং রসুনের দাম ৩০ টাকা কমেছে। তবে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের খুচরা বাজারগুলোতে ঠিক উল্টো চিত্র।

বেশ কয়েকজন খুচরা বিক্রেতা জানান, তারা আদা প্রতিকেজি ২৮০ টাকা থেকে ৩২০ টাকায় এবং রসুন ১৩০ থেকে ২০০ টাকায় বিক্রি করছেন।

তারা বলছেন, তারা কয়েক দিন আগে পাইকারি বাজারে বেশি দাম দিয়ে কিনেছেন বলে বেশি দামে বিক্রি করছেন।

আমদানিকারকরা বলছেন, আদা ও রসুনের প্রধান উৎস চীনসহ বিভিন্ন দেশ থেকে অনেক আদা ও রসুন আমদানি করেছে বাংলাদেশ, তবে করোনাভাইরাস আমদানিতে প্রভাব ফেলেছে।

ভোক্তাদের অভিযোগে, কিছু অসাধু ব্যবসায়ী রমজানের সময় পণ্যের দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন।

শামসুর রহমান নামে রাজধানীর শ্যামবাজারের এক আরতদার ইউএনবিকে বলেন, ক্রেতার অভাবে গত দুদিনের তুলনায় পাইকারি বাজারে আদা, রসুন এবং পেঁয়াজের দাম উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পেয়েছে।

তিনি বলেন, ‘দুদিন আগে যে পেঁয়াজ, আদা ও রসুন যথাক্রমে ৫০ টাকা, ২৪০-২৫০ টাকা এবং ১৩০ টাকায় বিক্রি করেছি, আজ (মঙ্গলবার) তা ৪৩-৪৫ টাকা, ১৫০ টাকা এবং ১৩০ টাকায় বিক্রি করছি।’

‘অনেক গ্রাহক আগে কিনে মজুদ করায় দাম কমেছে এবং করোনাভাইরাসের প্রভাব তো রয়েছেই,’ যোগ করেন শামসুর।

শ্যামবাজারের পাইকারী বিক্রেতা মানিক সাহা ইউএনবিকে বলেন, তারা দেশি পেঁয়াজ ৪৫ টাকা এবং আমদানি করা বিদেশি পেঁয়াজ ৪০ টাকা কেজি বিক্রি করছেন।

‘পেঁয়াজের দাম স্থিতিশীল রয়েছে। কিন্তু আদা ও রসুনের দাম এক সপ্তাহ আগে যা ছিল ক্রেতার অভাবে তা ব্যাপক হ্রাস পেয়েছে,’ যোগ করেন তিনি।

পাইকারি বিক্রেতা মানিক বলেন, বন্দরগুলোতে প্রচুর পরিমাণে আদা রয়েছে, যা শ্রমিকের অভাব ও বন্দরের ধীরগতির কার্যক্রমের কারণে আনলোড করা যাচ্ছে না।

রাশেদুল নামে পুরাতন ঢাকার এক দোকানদার বলেন, তারা বেশ কয়েক দিন আগে পাইকারি বাজার থেকে বেশি দামে কেনায় আদা ৩০০ টাকা কেজি এবং রসুন ১৩০-২০০ টাকা কেজি বিক্রি করছেন।

বংশালের বাসিন্দা নাছির উদ্দিন জানান, তিনি স্থানীয় একটি দোকান থেকে আদা ৩০০ টাকা ও রসুন ২০০ টাকা কেজি ক্রয় করেছেন।

তিনি বলেন, “বাজার তদারকির অভাবের সুযোগ নিয়ে প্রতিবছর রমজান মাস এলেই বিক্রেতরা দ্রুত বড়লোক হওয়ার জন্য জিনিসপত্রের দাম বাড়িয়ে ফেলেন। বর্তমান করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে অন্তত তাদের মানবিক হওয়া উচিত।”

তিনি আরও অভিযোগ করেন যে বেশিরভাগ দোকানদার দামের তালিকা ঝুলিয়ে রাখেন না।

সরকারি সূত্র বলছে, দেশে রসুনের চাহিদার পরিমাণ ০.৬ মিলিয়ন মেট্রিক টন হলেও উৎপাদিত হয় ০.৪৫ মিলিয়ন মেট্রিক টন। প্রয়োজনীয় অবশিষ্ট রসুন চীনসহ বিভিন্ন দেশ থেকে আমদানি করা হয়।

এদিকে, ইফতারের সবচেয়ে সাধারণ খাবার বেগুন ৬০-৭০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে, সপ্তাহ খানেক আগেও যেগুলো ৪০-৫০ টাকা কেজি বিক্রি হয়েছে। শশার দামও কেজিতে ১০ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে ৩০-৫০ টাকা এবং টমেটো ৪০-৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

পাশাপাশি, ডাল ও চিনির মধ্যে ছোলার ডাল ৬০-৭০ থেকে বৃদ্ধি পেয়ে ৮০-৯০ টাকা, মশুর ডাল ৪০-৪৫ থেকে ৫০-৫৫ টাকা ও চিনি ৬৫-৭০ টাকা থেকে ৭০-৭৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

মাংসের মধ্যে ব্রয়লার মুরগি ১৩০-১৪০ টাকায়, গরুর মাংস ৬০০-৬২০ টাকায় ও খাসির মাংস ৮০০-৯০০ টাকায় প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে।

শাক-সবজির মধ্যে পেঁপে ৩৫-৪০ টাকা, করলা ৩৫-৪০ টাকা এবং কাঁচা মরিচ ৪০-৫০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।

যোগাযোগ করা হলে ভোক্তাদের নিয়ে কাজ করা কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (সিএবি) সভাপতি গোলাম রহমান বলেন, কিছু অসাধু ব্যবসায়ী অতিরিক্ত মুনাফার লোভে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে।

তিনি বলেন, “সরকারের উচিত বিভিন্ন উপায়ে পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থা জোরদার করা, যাতে অসাধু ব্যবসায়ীরা করোনাভাইরাস সংকটের মধ্যে প্রয়োজনীয় সামগ্রীর দাম বৃদ্ধি করতে না পারে।”

50
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail