• বুধবার, জানুয়ারি ২৬, ২০২২
  • সর্বশেষ আপডেট : ১২:২৯ রাত

দেশের প্রথম এক্সপ্রেসওয়ে উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

  • প্রকাশিত ০৪:৩০ বিকেল মার্চ ১১, ২০২০
  • ২০১৬ সালের ৩ মে একনেকে প্রকল্পটি অনুমোদন পায়
  • প্রকল্পের মোট খরচ ১১,০০৩.৯০ কোটি টাকা 
  • ৪টি প্রধান সড়ক ও ২টি সার্ভিস লেন রয়েছে এক্সপ্রেসওয়েতে
  • এক্সপ্রেসওয়ে'র ঢাকা-মাওয়া অংশে ৪টি ও পাচ্চর-ভাঙ্গা অংশে ৩টি প্রবেশ ও বহির্গমনের পথ রয়েছে
  • প্রতি কিলোমিটার এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণে খরচ পড়েছে ২০০ কোটি টাকারও বেশি
  • ২০২০ সালের জুন মাসে প্রকল্পের কাজ শেষ হবে

দেশের প্রথম এক্সপ্রেসওয়ে উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার (১২ মার্চ) গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এক্সপ্রেসওয়েটির ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা অংশ উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। 

এর আগে, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের তত্ত্ববধায়ক প্রকৌশলী খন্দকার গোলাম মোস্তফা ঢাকা ট্রিবিউনকে জানান, “ঢাকা-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়েটি ৫৪ কিলোমিটারের ৪ লেন বিশিষ্ট। নির্মীয়মাণ পদ্মাসেতুর কাজ সমাপ্ত হলে এক্সপ্রেসওয়েটির যাত্রীরা সম্পূর্ণ সুবিধা ভোগ করতে পারবেন।”

এরমধ্য দিয়ে ঢাকা থেকে ফরিদপুর যেতে খুবই কম সময় লাগবে, ফলে ঢাকার সঙ্গে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের জেলাগুলোর যোগাযোগ সহজতর হবে। এটি এশিয়ান হাইওয়ে ১ (এএইচ১) এর একটি অংশ। যার মধ্যে দিয়ে ঢাকা থেকে বেনাপোল হয়ে কলকাতায় যাওয়াও আরও সহজ হবে।

দুইলেন বিশিষ্ট একমাত্র সড়কে ঢাকা থেকে ফরিদপুর যেতে কমপক্ষে ৭/৮ ঘণ্টা ব্যয় হয়। ফলে ভয়াবহ জ্যামের মধ্যে পড়তে হয় যাত্রীদের। বিশেষ করে,  অল্পসংখ্যক ফেরি থাকায় যাত্রাকাল কোনও কারণ ছাড়াই দীর্ঘায়িত হয়। এক্সপ্রেসওয়েটির ফলে এই অবস্থার পরিবর্তন ঘটবে ধারণা করা হচ্ছে।

১১ হাজার কোটির টাকার প্রজেক্ট  

২০১৬ সালে ৩ মে একনেক’র (জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ) নির্বাহী কমিটির এক্সপ্রেসওয়ের এই প্রকল্পটির অনুমোদন দেয়।  সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তরের তত্ত্বাবধানে ১১ হাজার কোটি টাকায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর স্পেশাল ওয়ার্ক অর্গানাইজেশন (এসডাব্লিউ) প্রকল্পটি বাস্তবায়নের দায়িত্ব পায়।

প্রাথমিকভাবে, ২০১৮ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে প্রকল্পটির কাজ শেষ করার কথা ছিল। সেসময় এর ব্যয় ধরা হয়েছিল ৬ হাজার ২৫২ হাজার কোটি টাকা। পরবর্তীতে প্রকল্পটির বরাদ্দ বাড়িয়ে ৬ হাজার ৮৯২ কোটি টাকা করা হয়। তবে কাজ অর্ধেক শেষ হতে না হতেই বরাদ্দের টাকা শেষ হয়ে যায়।

পরবর্তীতে এক্সপ্রেসওয়েটি দুই অংশে ভাগ বিভক্ত করা হয়। যারমধ্যে যাত্রাবাড়ি থেকে মাওয়া অংশে ৩৪.৭ কিলোমিটার ও পাচ্চর থেকে ভাঙ্গা অংশে ২০ কিলোমিটার। প্রতি কিলোমিটার এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণে খরচ হচ্ছে ২০০ কোটি টাকা।

এক্সপ্রেসওয়েটি এমনভাবে নকশা করা হয়েছে যাতে এতে খুব দ্রুতগতিসম্পন্ন যানবাহন চলাচল করতে যারে।

চারলেন বিশিষ্ট ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়েটিতে চালকরা প্রবেশ ও বের হতে চারটি পথ পাবে অন্যদিকে পাচ্চর-মাওয়াতে প্রবেশ ও বাহির হতে তিনটি প্রবেশপথ পাবে। এছাড়া কমগতিসম্পন্ন যানবাহনগুলো এক্সপ্রেসওয়ের অন্যপাশে থাকা দুইলেন বিশিষ্ট সড়ক দিয়ে চলাচল করতে পারবে।

এক্সপ্রেসওয়েটিতে পাঁচ মিটার প্রশস্ত সেন্ট্রাল রিজার্ভেশন, ধলেশ্বরী ও আড়িয়াল খাঁ নদীর ওপর অবস্থিত তিনটি সেতু, দু'টি সার্ভিস রোড, বিভিন্ন দৈর্ঘ্যের ২৮ কালভার্ট ও ছোট সেতু রয়েছে। এছাড়া এক্সপ্রেসওয়েটিতে ৬টি ফ্লাইওভার ও ৪টি  রেললাইন রয়েছে।  

সরেজমিনে দেখা গেছে, জুরাইনে এক্সপ্রেসওয়েটির একটি রেলওয়ে চলে গেছে, যেটি উদ্বোধনের জন্য প্রস্তুত।

এক্সপ্রেসওয়েটি ধোলাইপার মোড় থেকে শুরু হচ্ছে, যেখানে মেয়র মোহাম্মদ হানিফ ফ্লাইওভারটি শেষ হয়েছে, বাংলাদেশ-চীন ফ্রেন্ডশিপ সেতু (পোস্তোগোলা সেতু) হয়ে মাওয়ার দিকে চলে গেছে।

ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা চারলেন এক্সপ্রেসওয়েতে যানবাহনের গতি বাড়াতে প্রথম বুড়িগঙ্গা সেতুকে সম্প্রসারণ করা হচ্ছে। খুবই অপ্রশস্ত সেতুটি চারলেনের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ না হওয়ায় নতুন করে সেতুটি সম্প্রসারণ করার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

 

 

50
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail