• রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২
  • সর্বশেষ আপডেট : ০৮:০৮ সকাল

ট্রাফিক ব্যবস্থার উন্নয়নে ডিএমপির ২৯ কর্মপরিকল্পনা

  • প্রকাশিত ০৪:৪৭ বিকেল জানুয়ারী ২৭, ২০১৯
ডিএমপি

এই কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়িত হলে ঢাকার ট্রাফিক অবস্থার ব্যাপক উন্নতি হবে বলে ধারণা করছে ডিএমপি

রাজধানীতে ট্রাফিক ব্যবস্থার উন্নয়নে এবং সড়কে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীকে ২৯টি স্বল্প ও মধ্যমেয়াদি কর্মপরিকল্পনা গ্রহণের সুপারিশ জানিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।গত ১৩ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের মুখ্য সচিব বরাবর পাঠানো এক চিঠিতে এ সুপারিশ করা হয়। 

ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস বিভাগ এই চিঠির সত্যতা নিশ্চিত করেছে বলে বাংলা ট্রিবিউনের একটি খবরে বলা হয়েছে।

ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া স্বাক্ষরিত ওই চিঠিতে বলা হয়েছে যে, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে সংশ্লিষ্ট সকল বিভাগের মধ্যে সমন্বয়ের উদ্যোগ গ্রহণ করা হলে কর্মপরিকল্পনা বহুলাংশে বাস্তবায়ন করা সম্ভব।এই কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়িত হলে ঢাকার ট্রাফিক অবস্থার ব্যাপক উন্নতি হবে বলেও ঐ চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

এক নজরে ডিএমপি প্রস্তাবিত ২৯ কর্ম্পরিকল্পনা:

১. বাস স্টপেজ উন্নতকরণ: 

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের পক্ষ থেকে উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ১৩০টি বাস স্টপেজের যাত্রী ছাউনি, টিকেট কাউন্টার এবং বাস থামার রোড মার্কিংয়ের এ বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

২. অনস্ট্রিট পার্কিং:

ডিএমপি এবং সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে আরও নতুন স্থান চিহ্নিত করে রোড মার্কিং করে ইজারা ভিত্তিতে অনস্ট্রিট পার্কিংয়ের পরিমাণ বাড়ানোর কথা বলা হয়েছে।

৩. রোড ডিভাইডার ঊর্ধ্বমুখী করণ:

সড়কে ঝুঁকি নিয়ে পথচারীদের রাস্তা পারাপার বন্ধে রোড ডিভাইডার উঁচু করার কথা বলেছে ডিএমপি।

৪. গণপরিবহনের শৃঙ্খলা:

রাজধানীর বাস সার্ভিসে শৃঙ্খলা আনয়নের লক্ষ্যে ডিএমপির প্রস্তাবনা হলো- বাসগুলো নির্দিষ্ট স্টপেজে ফুটপাত ঘেঁষে দাঁড়িয়ে যাত্রী ওঠানামা করবে, চলার পথে দরজা বন্ধ করে চলাচল করবে, যাত্রীরা প্রতিটি কাউন্টার হতে টিকেট ক্রয় করে লাইন দিয়ে বাসে উঠবে।

৫. রোড মার্কিং নিশ্চিতকরণ:

সড়কের ট্রাফিক শৃঙ্খলার ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট রোড মার্কিং (স্টপলাইন, জেব্রা ক্রসিং, ল্যান মার্কিং, এরো মার্কং ইত্যাদি) গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। রোড মার্কিং মুছে গেলে নিয়মিতভাবে সিটি করপোরেশন রোড মার্কিং পুনস্থাপন করার বিষয়টি নিশ্চিত করবে।

৬. ট্রাফিক সিগন্যাল ব্যবস্থাপনা:

সিএএসই প্রকল্প এবং অন্যান্য প্রকল্পের বাস্তবায়নাধীন ট্রাফিক সিগন্যালগুলো দ্রুত ত্রুটিমুক্ত করে চালু করার উদ্যোগ নিতে হবে।

৭. ট্রাফিকে কারিগরি ইউনিটের ব্যবহার:

ইতোমধ্যে সরকার ৩৯ জন জনবলের ডিএমপি ট্রাফিক কারিগরি ইউনিটের মঞ্জুরি প্রদান করেছে। দ্রুত জনবল নিয়োগের মাধ্যমে তাদের কাজে লাগাতে হবে।

৮. দক্ষ ড্রাইভার তৈরি করা:

সারা বাংলাদেশে গাড়ির সংখ্যা আনুমানিক ৩৫ লাখ হলেও বৈধ ড্রাইভারের সংখ্যা আনুমানিক ১৮ লাখ। এ অবস্থা হতে উত্তরণের লক্ষ্যে সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে দক্ষ ড্রাইভার তৈরির উদ্যোগ হিসেবে বিআরটিএ কর্তৃক প্রশিক্ষিত ড্রাইভারদের ড্রাইভিং লাইসেন্স প্রদান কার্যক্রম সহজ ও দ্রুত করতে হবে।

৯. বাস রুট ফ্রাঞ্জাইজ করা:

সিটি করপোরেশনের মাধ্যমে বাস রুট ফ্রাঞ্জিইজি করার বিষয়ে যে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল তা বেগবান করতে হবে।

১০. বহুতল ভবনের ট্রাফিক ছাড়পত্র:

ঢাকা শহরের ১০ তলার ওপরে বহুতল ভবন নির্মাণের ক্ষেত্রে ডিএমপির ট্রাফিক শাখার ছাড়পত্র দেওয়ার যে নিয়ম রয়েছে তা বলবৎ করা। এ ধরনের বহুতল ভবনের কারণে অধিক যানবাহনের আনাগোনায় যানজট তৈরি হয়।  

১১. বিভিন্ন সড়ক রিকশামুক্ত করা:

মানসম্পন্ন বাস দিয়ে বিভিন্ন সড়কে যাত্রী সেবার মান বাড়াতে হবে। পাশাপাশি ওই সব সড়কে রিকশা তুলে দেওয়ার উদ্যোগ নিতে হবে। রাজধানীর মিরপুর রোড এবং উত্তরা-কুড়িল-বাড্ডা-মতিঝিল রুটে এ ধরনের বাস সার্ভিস দিয়ে দ্রুত রিকশা মুক্ত করতে হবে।

ফাইল ছবি

১২. স্কুলবাস চালু:

শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি কমানো ও যানজট নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নির্দিষ্ট রঙয়ের স্কুলবাস সার্ভিস চালু করতে হবে। ডিএমপি এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয় এ ব্যাপারে যৌথ উদ্যোগ নিতে পারে।

১৩. রাইড শেয়ারিং: 

রাজধানীতে বর্তমানে যে রাইড শেয়ারিং ব্যবস্থা চালু রয়েছে তার সংখ্যা যাতে অনিয়মিতভাবে বৃদ্ধি না পায় সে বিষয়ে সিলিং নির্ধারণ করতে হবে। সিএনজি থ্রি-হুইলার মিটারে না গিয়ে কনট্রাক্টে যাওয়া বন্ধ করার লক্ষ্যে উবার অ্যাপস এর মাধ্যমে সিএনজি থ্রি-হুইলার যাত্রী পরিবহন করা যায় কিনা সেই বিষয়ে যাচাই করে ব্যবস্থা নিতে হবে।

১৪. পুশ বাটন ব্যবস্থায় পথচারী পারাপার:

পুশ বাটন ব্যবস্থা চালু করে পথচারী পারাপারের বিষয়ে ডিএমপি এবং সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ। 

১৫. এলিভেটেড পার্কিং ব্যবস্থাপনা:

ঢাকা শহরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে মৎস্য ভবনের মতো এলিভেটেড পার্কিং ব্যবস্থা চালু করে রাস্তায় অবৈধ পার্কিংসহ যানজট কমানো সম্ভব হবে।

১৬. যানবাহনের ও ড্রাইভিং লাইসেন্সের হালনাগাদ তথ্য সরবরাহ:

বিআরটিএ’র পক্ষ থেকে হালনাগাদ তথ্য অনলাইনে নিয়মিত সরবরাহ করা হলে ডিএমপির পক্ষ থেকে সঠিকভাবে তথ্য যাচাই করে মোটরযান আইন প্রয়োগ সহজ হবে।

১৭. বিআরটিসির নতুন বাস দিয়ে ঢাকা মহানগরীর গণপরিবহন ব্যবস্থা উন্নয়ন:

যাত্রী সেবার মান বৃদ্ধি এবং যানজট কমানোর লক্ষ্যে বিআরটিসির বাস বহরে নতুন করে সংযুক্ত ৬০০ এসি ও নন-এসি বাস দিয়ে ঢাকা শহরের নিম্নবর্ণিত কয়েকটি নির্দিষ্ট রুটে বাস সার্ভিস চলাচল চালু করা যেতে পারে। ক. ধানমণ্ডি-নিউমার্কেট-আজিমপুর চক্রাকার এসি বাস সার্ভিস, খ. মালিবাগ-খিলগাঁও-মতিঝিল চক্রাকার এসি বাস সার্ভিস, গ. উত্তরা-মতিঝিল এসি বাস সার্ভিস, ঘ. উত্তরা-সায়েদাবাদ এসি বাস সার্ভিস, ঙ. উত্তরা-গুলশান চক্রাকার এসি বাস সার্ভিস, চ. মিরপুর-ভুলতা এসি বাস সার্ভিস, ছ. গাবতলী-সদরঘাট, ভায়া-শ্যামলী-আসাদগেট-সাইন্সল্যাব-শাহবাগ-মৎস্যভবন-পল্টন-ফুলবাড়িয়া-সদরঘাট এসি বাস সার্ভিস, জ. উত্তরা-মতিঝিল, ভায়া- মহাখালী-সাতরাস্তা-মগবাজার-কাকরাইল চার্চ-নাইটেঙ্গেল-পল্টন-দৈনিক বাংলা-শাপসা চত্বর এসি বাস সার্ভিস।

১৮. কমিউটর ট্রেন ব্যবস্থার উন্নয়ন: 

ঢাকা-গাজীপুর ও ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে ঘনঘন ট্রেন ব্যবস্থা চালু করে ঢাকা শহরের যানজট অনেকটা কমানো সম্ভব।

১৯. নির্মাণ সামগ্রীর অপ্রয়োজনীয় অংশ রাস্তা হতে দ্রুত অপসারণ:

সিটি করপোরেশন ও অন্যান্য সংস্থা ঢাকা শহরের সড়কের উন্নয়ন কাজ করার পর অপ্রয়োজনীয় নির্মাণ সামগ্রী, মাটি, বালি ইত্যাদি অনেক সময় দীর্ঘদিন সড়কে ফেলে না রেখে দ্রুত নিস্কাশন করতে হবে।

২০. আধুনিক করিডর:

রাজধানীর এয়ারপোর্ট হতে জিরো পয়েন্ট (ভায়া ফার্মগেট) পর্যন্ত ভিআইপি সড়ককে আধুনিক করিডোর হিসেবে উন্নত করতে হবে।

২১. পূর্ব-পশ্চিম বরাবর সড়ক চালু করা:

ঢাকা শহরের অধিকাংশ বড় সড়কই উত্তর-দক্ষিণ বরাবর। ফার্মগেট-সাতরাস্তার মতো পূর্ব-পশ্চিম বরাবর সড়কে ভালো বাস ব্যবস্থা চালু করে যাত্রী সেবার মান বৃদ্ধি করতে হবে।

২২. স্টেকহোল্ডার গণের সমন্বয়ে বৈঠক:

রাজধানীর সড়ক ব্যবস্থার উন্নয়নে সংশ্লিষ্ট সব স্টেকহোল্ডারগণের সমন্বয়ে নিয়মিত বৈঠক করে নীতি নির্ধারণ ও বাস্তবায়ন করতে হবে।

২৩. ইন্টারসেকশন ম্যানেজমেন্ট:

ইন্টারসেকশন ম্যানেজমেন্ট ব্যবস্থা আরও জোরদার করতে হবে। এক্ষেত্রে স্টপ লাইন বরাবর গাড়ি দাঁড় করানো, জেব্রা ক্রসিং দিয়ে পথচারী পারাপার, বাম লেন পরিষ্কার রাখা, ইলেকট্রনিক বা হাত সিগন্যাল দিয়ে নিয়ম অনুযায়ী গাড়ি চালানো ইত্যাদি ব্যবস্থা জোরদার করা প্রয়োজন।

২৪. ফুটওভার ব্রিজ, আন্ডারপাস ব্যবহার:

পথচারীদের ফুটওভার ব্রিজ ও আন্ডারপাস ব্যবহারে উৎসাহিত করতে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা, পুলিশ অথবা স্কাউট মোতায়েন করে সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে।

২৫. হর্নের ব্যবহার সীমিতকরণ ও হাইড্রোলিক হর্ন আমদানি বন্ধ:

যে কোনও যানবাহনের হাইড্রোলিক হর্নের ব্যবহার বন্ধ করতে হবে। অপ্রয়োজনে সাধারণ হর্ন বাজানোর বিষয়টিও নিয়ন্ত্রণ করতে হবে।

২৬. মেট্রোরেলের কাজ চলাকালীন ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা:

মেট্রোরেলের কাজ চলাকালীন ট্রাফিক ব্যবস্থাপনায় ডিএমপি ও মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষের মধ্যে সমন্বয় মিটিং করে যে কার্যবিবরণী পাঠানো হয়েছে সে বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে হবে।

২৭. ডিএনসিসি প্রস্তাবিত ইউলুপগুলো পর্যায়ক্রমে বাস্তবায়ন:

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন এলাকায় কয়েকটি ইউলুপ তৈরির কার্যক্রম হাতে নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে একটির কাজ ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। বাকিগুলোও দ্রুত বাস্তবায়ন প্রয়োজন।

২৮. জনসচেতনতামূলক প্রচারণা:

ট্রাফিক আইন ও সড়কে শৃঙ্খলা বিষয়ে জনগণকে সচেতন করতে বিভিন্ন উপায়ে প্রচারণা চালাতে হবে। এমনকি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ট্রাফিক বিষয়ে প্রচারণা চালানো যেতে পারে।

২৯. আন্ডারগ্রাউন্ড পার্কিংয়ের যথাযথ ব্যবহার:

ঢাকা মহানগরের বিভিন্ন বহুতল ভবনে, বিশেষ করে গুরুত্বপূর্ণ সড়কের দু'পাশের ভবন আন্ডারগ্রাউন্ড পার্কিং ব্যবস্থার যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করার জন্য আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে হবে।

50
Facebook 50
blogger sharing button blogger
buffer sharing button buffer
diaspora sharing button diaspora
digg sharing button digg
douban sharing button douban
email sharing button email
evernote sharing button evernote
flipboard sharing button flipboard
pocket sharing button getpocket
github sharing button github
gmail sharing button gmail
googlebookmarks sharing button googlebookmarks
hackernews sharing button hackernews
instapaper sharing button instapaper
line sharing button line
linkedin sharing button linkedin
livejournal sharing button livejournal
mailru sharing button mailru
medium sharing button medium
meneame sharing button meneame
messenger sharing button messenger
odnoklassniki sharing button odnoklassniki
pinterest sharing button pinterest
print sharing button print
qzone sharing button qzone
reddit sharing button reddit
refind sharing button refind
renren sharing button renren
skype sharing button skype
snapchat sharing button snapchat
surfingbird sharing button surfingbird
telegram sharing button telegram
tumblr sharing button tumblr
twitter sharing button twitter
vk sharing button vk
wechat sharing button wechat
weibo sharing button weibo
whatsapp sharing button whatsapp
wordpress sharing button wordpress
xing sharing button xing
yahoomail sharing button yahoomail